07:12 PM, 12 Feb 2019
নিউজিল্যান্ড জয়ের জন্য যে মন্ত্রে উজ্জীবিত মাশরাফি

নিউজিল্যান্ডের মাটি যে কোনো ক্রিকেট শক্তির জন্যই এক দুর্বোধ্য জায়গা। সেখানে গিয়ে খুব কম দেশই জয় নিয়ে ফিরে আসতে পেরেছে। বাংলাদেশের তো সাফল্য বলতে একেবারেই শূন্য। ব্ল্যাক ক্যাপসদের দেশে গিয়ে এখনও পর্যন্ত ১০টি ওয়ানডে খেলে কোনো জয় নেই টাইগারদের। 

এমনকি ৭ টেস্টের একটিতেও ড্র নেই। অনেকগুলো ম্যাচেই সঙ্গী হয়েছে লজ্জাজনক পরাজয়।

সেই নিউজিল্যান্ডের মাটিতে এবার প্রথমবারেরমতো সাফল্যের খোঁজে বাংলাদেশ দল। তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ শুরু হচ্ছে আগামীকাল ভোর ৭টায়, নেপিয়ারের ম্যাকক্লারেন পার্কে। ৩ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের পর ৩ ম্যাচের টেস্ট সিরিজ। নিঃসন্দেহে বিশ্বকাপের আগে বাংলাদেশের জন্য কঠিন এবং গুরুত্বপূর্ণ একটি সফর।

কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ এই সফরের আগেই কঠিন বাস্তবতার মুখোমুখি টাইগাররা। বিপিএলের কারণে নিউজিল্যান্ড সফরের জন্য কোনো প্রস্তুতি নেয়ারই সুযোগ পায়নি বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটাররা। এমনকি প্রস্তুতি ম্যাচের দল পূরণ করার জন্য খেলাতে হয়েছে টেস্ট দলের মুমিনুলকেও।

প্রস্তুতি ঘাটতির বিষয়টা যখন খুব ভাবাচ্ছিল দলকে, তখনই বজ্রের মত হয়ে এলো সাকিবের আঙ্গুলের ইনজুরি। বিপিএল ফাইনালে আঙ্গুলে নতুন করে চোট পেয়েছেন তিনি। সে কারণে কিউদের বিপক্ষে সাকিবকে আর পাচ্ছে না বাংলাদেশ। সাকিব অনুপস্থিত থাকা মানে, একইসঙ্গে একজন বোলার, একজন ব্যাটসম্যান এবং একজন নেতাকে হারাল বাংলাদেশ। যিনি একাই একটি ম্যাচের পুরো চিত্র পাল্টে দেয়ার ক্ষমতা রাখেন।

এমন পরিস্থিতিতে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে কি করবে বাংলাদেশ? এত বাধা পেরিয়ে কি পারবে নিউজিল্যান্ড জয় করতে? দলীয় অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজার বিশ্বাস, পারবে বাংলাদেশ। তবে তার জন্য কিছু শর্তও জুড়ে দিয়েছেন টাইগার অধিনায়ক। সেই শর্ত পূরণ হলেই কেবল, কিউইদেরকে তাদের নিজেদের মাটিতেই বধ করতে পারবে বাংলাদেশ।

ম্যাকক্লারেন পার্কে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে প্রথমেই বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফির কাছে উঠে আসল প্রস্তুতির বিষয়টা। প্রস্তুতির স্বল্পতার বিষয়টা কি বাংলাদেশের জন্য বড় কোনো সমস্যা হবে কি-না? জানতে চাইলে মাশরাফি বলেন, ‘আপনি যদি আগের সফরগুলোর সঙ্গে তুলনা করেন, তাহলে বলতে হবে এবার আমাদের প্রস্তুতি একই ছিল না।’

তবে মাশরাফি নিজেদেরকে অন্য দিক দিয়ে এগিয়ে রাখলেন সবচেয়ে বেশি। তিনি বলেন, ‘প্রস্তুতি কম হতে পারে, তবে আমাদের মানসিক শক্তি আগের চেয়ে অনেক বেশি এবার। স্কিলের চেয়েও আমাদের মানসিক শক্তিটা বেশি থাকা জরুরি। স্কিলের বিষয়টা আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ নয়। যদি এখানে স্বাগতিক নিউজিল্যান্ডকে হারাতে হয় তাহলে, অবশ্যই আমাদেরকে আগের চেয়ে মানসিকভাবে অনেক শক্তিশালী হতে হবে। আমার বিশ্বাস, এবার সেটা আমাদের রয়েছে।’

ড্রেসিং রুমের কি অবস্থা, সেটাও তুলে ধরেছেন মাশরাফি। তিনি বলেন, ‘ড্রেসিং রুমের অবস্থা খুবেই শান্ত। সবাই ফুরফুরে মেজাজে রয়েছে। যদি আমরা শুরুটা ভালো করি, তাহলে আশা করি ম্যাচটাও আমাদের জন্য ভালো হবে এবং একই সঙ্গে সিরিজটাও ভালো হতে পারে।’

ম্যাচ শুরুর আগেরদিন আজ অনুশীলনে বেশ ঘাম ঝরিয়েছে বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটাররা। ইনডোরে নেট সেশনের সঙ্গে জিম এবং আউটডোর প্র্যাকটিসও ছিল টাইগারদের। ২০১৫ সালের বিশ্বকাপে স্বাগতিক নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে জয়ের একেবারে ধারেকাছে গিয়েও ৩ উইকেটের ব্যবধানে হারতে হয়েছিল বাংলাদেশকে। অধিনায়ক মাশরাফি জানিয়ে দিলেন, সেই হারের পর বাংলাদেশের মানসিকতায়ও অনেক বড় পরিবর্তন এসে গেছে।

যদিও এরপর নিউজিল্যান্ড সফরে গিয়েছিল বাংলাদেশ এবং সেবারও খুব ভালো কিছু করতে পারেনি তারা। তবুও মাশরাফি বলেন, ‘আগেও আমরা এখানে এসেছিলাম একই ধরনের লক্ষ্য নিয়ে। যদিও তখন আমাদের মানসিকতা এতটা পরিপূর্ণ হিসেবে গড়ে ওঠেনি। তবে ২০১৫ বিশ্বকাপের ম্যাচ এবং ২০১৭ সালের সিরিজে আমাদের মানসিকতা ছিল সম্পূর্ণ ভিন্ন। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবেই হয়তো যে সুযোগ পেয়েছিলাম, সেটাকে আমরা ভালোভাবে কাজে লাগাতে পারিনি। সুতরাং, আমাদেরকে এবার সাফল্য পেতে হলে অবশ্যই সুযোগগুলো কাজে লাগানোর দিকে মনোযোগ দিতে হবে। একই সঙ্গে আগের চেয়েও অনেক ভালো ক্রিকেট খেলতে হবে।’